সকাল ৮:৪৮, মঙ্গলবার, ২৫শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ জাতীয় / আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো
আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো
ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৭

করতোয়া ডেস্ক : ‘আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি।’ আজ ১৭ ফেব্রুয়ারি। আর ৩ দিন পর অমর একুশে। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষার অধিকার আদায় করতে গিয়ে রাজপথে শহীদ হয়েছিলেন রফিক, জব্বার, সালাম, বরকত শফিউল্লাহসহ আরও অনেকে। সেই থেকে একুশ আমাদের সংগ্রামী দিন। একুশ আমাদের প্রেরণার উৎস।

প্রতিবছরের মত এবারও ২১ ফেব্রুয়ারি নানা আয়োজনে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে পালিত হবে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। নিউ ইয়র্ক, ওয়াশিংটন সিটি, নিউ জার্সি, লস অ্যাঞ্জেলেস, শিকাগো, হিউস্টন, অরল্যান্ডোসহ বিভিন্ন শহরে হবে আলোচনাসভা, শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শহীদ মিনারগুলোতে ফুল দিয়ে গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হবে ১৯৫২ সালে ভাষার জন্য রক্ত দেওয়া শহীদদের। দিনটি উপলক্ষে ২১ ফেব্রুয়ারি স্মারক সিলমোহর প্রকাশ করবে যুক্তরাষ্ট্রের ডাক বিভাগ। বিশেষ এ সিলমোহরটি সপ্তাহব্যাপী নিউ ইয়র্ক, নিউ জার্সি ও কানেটিকাটের সব পোস্ট অফিসে ব্যবহার করা হবে। গত বছর মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের আহ্বানে নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস পোস্ট অফিসে প্রথমবার মাতৃভাষা দিবসের স্মারক সিলমোহর ব্যবহৃত হয়। জাতিসংঘে বাংলাদেশ, হাঙ্গেরি, মরিশাস ও ভানুয়াতুর স্থায়ী মিশনের উদ্যোগে ২১ ফেব্রুয়ারি নিউ ইয়র্কের জাতিসংঘ সদরদপ্তরে হবে মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠান। জাতিসংঘ সচিবালয়, ইউনেস্কো, নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়রের কার্যালয়ের সহযোগিতায় এ অনুষ্ঠানে জাতিসংঘ মহাসচিবের প্রতিনিধি, সাধারণ অধিবেশনের সভাপতি, বিভিন্ন সদস্য রাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি ও নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়র কার্যালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।

জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো এবারের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের সেøাগান ঠিক করেছে- ‘বহুভাষার শিক্ষায় টেকসই ভবিষ্যতের পানে’। ইউনেস্কো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছিল ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর। ২০০৮ সাল থেকে জাতিসংঘও দিবসটি উদযাপন করে আসছে। এবারও একুশের প্রথম প্রহরে জাতিসংঘ ভবনের সামনে দাগ হ্যামারশোল্ড পার্কে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া হবে। জাতিসংঘ সদরদপ্তর এবং নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের শীর্ষ কর্মকর্তা ও তাদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে প্রবাসী বাংলাদেশিরাও সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন বলে আয়োজক সংগঠন মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের প্রধান সমন্বয়ক বিশ্বজিৎ সাহা জানান। বাংলাদেশ মিশনের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে স্থাপিত শহীদ মিনারেও একুশের প্রথম প্রহরে শ্রদ্ধা জানানো হবে। প্রবাসীরা ফুলেল শ্রদ্ধা জানাবেন নিউ জার্সির প্যাটারসন, টেক্সাসের হিউস্টন ও ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলেস সিটির স্থায়ী শহীদ মিনারে।

বাংলাদেশ সোসাইটির উদ্যোগে কুইন্সের উডসাইড এলাকায় গুলশান টেরেস মিলনায়তনে বানানো হবে অস্থায়ী শহীদ মিনার। সেখানে প্রবাসীদের অর্ধশতাধিক সংগঠন ফুল দেবে বলে জানিয়েছেন সোসাইটির প্রচার ও জনসংযোগ সম্পাদক রিজু মোহাম্মদ। কুইন্সের প্যালেস মিলনায়তনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাবে অন্তত ৩৯টি সংগঠন। এর আগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও মহান একুশে উপলক্ষে আয়োজিত রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিশু-কিশোরদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হবে। ব্রংকসের অল্মস্টিড এভিনিউর অস্থায়ী শহীদ মিনারেও ডজনখানেক সংগঠন শ্রদ্ধা জানাবে বলে স্থানীয় বাংলাদেশি কমিউনিটির নেতারা জানিয়েছেন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top