সকাল ৬:০১, শুক্রবার, ২৩শে জুন, ২০১৭ ইং
/ Top News / আফিয়ার দাফন সম্পন্ন সেন্ট্রাল হাসপাতালের পরিচালক গ্রেফতার পরে জামিন
আফিয়ার দাফন সম্পন্ন সেন্ট্রাল হাসপাতালের পরিচালক গ্রেফতার পরে জামিন
মে ১৯, ২০১৭

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস : ভুল চিকিৎসায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ এনে ঢাকার সেন্ট্রাল হাসপাতালের পরিচালক ও চিকিৎসকসহ নয়জনের বিরুদ্ধে     মামলা করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক আমজাদ আলী। গত বৃহস্পতিবার রাতে ধানমন্ডি থানায় মামলা দায়েরের পর হাসপাতালের পরিচালক ডা. এম এ কাশেমকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

 

পরে গতকাল শুক্রবার তাকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। অন্যদিকে ডা. কাশেমের আইনজীবী জামিনের আবেদন করলে আদালত জামিন মঞ্জুর করেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অভিযোগ প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী আফিয়া জাইন চৈতী ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে গত বুধবার সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি হলে তাকে ক্যান্সারের চিকিৎসা দেওয়া হয়।

 

 এতে বৃহস্পতিবার বিকালে তার মৃত্যু হয়। অন্যদিকে ওই ছাত্রীর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে সহপাঠীরা হাসপাতালে ভাঙচুর চালায়।মামলার অন্য আসামিরা হলেন- অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ, কাশেম ইউসুফ, ডা. মর্তুজা, লেফটেন্যান্ট কর্নেল এ এস এম মাতলুবুর রহমান, ডা. মাসুমা পারভীন, ডা. জাহানারা বেগম মোনা, ডা. মাকসুদ পারভীন ও ডা. তপন কুমার বৈরাগী ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. এম এ কাশেম।

 

ডিএমপির ধানমন্ডি জোনের সহকারী কমিশনার আবদুল্লাহিল কাফী জানান, স্বজনরা ময়না তদন্ত করাতে চাননি। এ কারণে বৃহস্পতিবার রাতেই চৈতীর লাশ তার গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়। চৈতীর বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায়। শামসুন্নাহার হলে সংযুক্ত এই ছাত্রী থাকতেন পলাশী এলাকায়।আফিয়ার দাফন সম্পন্ন


আমাদের চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, রাজধানীর সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় মারা যাওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের প্রথম বর্ষের মোধাবী ছাত্রী আফিয়া জাহানের দাফন তার গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার লছমানপুর গ্রামে সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়।


এর আগে গতকাল শুক্রবার ভোরে আফিয়ার লাশ তার গ্রামের বাড়িতে পৌঁছলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যর অবতারণা হয়। স্বজনদের বুকফাটা আহাজারীতে ভারী হয়ে উঠে এলাকার পরিবেশ। সহপাঠীকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ে লাশের সঙ্গে আসা ঢাবির শিক্ষার্থীরাও। এ সময় এলাকায়  শোকাবহ পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় লছমানপুরে জানাজা শেষে তার লাশ পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক মাহবুব আলম, আওয়ামী লীগ নেতা ডা. সামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুলসহ এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন।


আফিয়ার চাচা বিনোপুর ইউপির সাবেক মেম্বার বাদল জানান, আফিয়ার বাবা সেফাউর রহমান অগ্রণী ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। তার দুই মেয়ের মধ্যে আফিয়া ছোট। ২০১৩ সালে বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ২০১৫ সালে বিনোদপুর ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পাসের পর ভর্তি হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিজ্ঞান বিভাগে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top