সকাল ৮:১৩, শুক্রবার, ২৪শে মার্চ, ২০১৭ ইং
/ বিনোদন / অভিভূত মোশাররফ করিম…
অভিভূত মোশাররফ করিম…
ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৭

বিনোদন রিপোর্টার : তখন দুপুর একটা। রাজধানীর উত্তরায় শামীম জামান পরিচালিত আরটিভিতে প্রচার চলতি ধারাবাহিক ‘ঝামেলা আনলিমিটেড’ ধারাবাহিক নাটকের শুটিং-এর জন্য পুরো ইউনিট বসা। সকাল দশটা থেকে ইউনিট বসা। কারণ যে অভিনেত্রীর সকালে আসার কথা ছিলো তিনি পেটৗঁছাননি। লোকেশনে গিয়েই জানা যায় এই তথ্য। জানা যায় দুপুর ২টায় পরিচালকের দেয়া কলটাইম অনুযায়ী সেট-এ প্রবেশ করবেন মোশাররফ করিম। উত্তরার নীলাঞ্জনা শুটিং হাউজের বাইরে দাঁড়িয়ে তখন কথা হচ্ছিলো শামীম জামানের সঙ্গে।

 ঘড়ির কাঁটায় তখন ১.৩৫ মিনিট। রিক্সায় চড়ে উপস্থিত মোশাররফ করিম। রিক্সা থেকে নেমেই শেরপুরের রিক্সওয়ালা রাজ্জাকের সঙ্গে কুশলাদি বিনিময় করেন মোশাররফ করিম। রাজ্জাক’র কোন মোবাইল নেই, নিজের বয়স কতো তাও জানে না তিনি। তবে উত্তরার নং নম্বর সেক্টরের ছাপড়া মসজিদের রিক্স গ্যারেজে সারাদিনের কষ্ট শেষে সেখানে ফিরে মোশাররফ করিম অভিনীত নাটক দেখেন। ভাড়া চুকিয়ে দিয়ে মোশাররফ করিম যখন শুটিং হাউজের দিকে পা বাড়াচ্ছিলেন তখন রাজ্জাক ডেকে বলেন,‘ আপনের নাটক বালা লাগে’।

 শুনে মোশাররফ করিম মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকেন। অভিভূত হন তিনি। রাজ্জাক মোশাররফ করিমের নাম না জানলেও তিনি যে এদেশের একজন জনপ্রিয় অভিনেতা তা অবগত রাজ্জাক। সারাদিনের কষ্ট শেষে মোশাররফ করিমের নাটক দেখে ক্লান্তি ভুলে যান রাজ্জাক। মোশাররফ করিম বলেন, ‘রাজ্জাক ভাই আপনি আমার বয়সে বড় না ছোট জানি না। তবে ভালোলাগছে যে আপনি আমার নাটক দেখেন। আপনাদের কারণেই অভিনয় করি, আপনাদের ভালোলাগার মাঝে আমি আমার নিজেকে খুঁজে পাই। দোয়া করি আল্লাহ আপনাকে ভালো রাখুন, সুস্থ রাখুন।

’ রিক্সা নিয়ে নিজের গন্তব্যের দিকে পা বাড়ানোর আগে রাজ্জাক বলেন,‘ আমার নাম রাজ্জাক, নায়ক রাজ্জাকের সিনেমা দেখছি ছোটবেলায় অনেক। তারে একবার সামনে থাইক্যা দেখার খুব ইচ্ছা। বড় হয়ে আপনাকে দেখার মনে মনে ইচ্ছা ছিলে, সেই ইচ্ছা আমার পূরণ হইছে।’ রাজ্জাক চলে যাবার পর মোশাররফ করিম সেট-এ প্রবেশ করেন। শুটিং-ও শুরু হয় নায়িকা ছাড়াই। বিকেল তিনটা ত্রিশ মিনিটে নায়িকা আসেন লোকেশনে। ততোক্ষণে পরিচালক শামীম জামানের মাথা গরম। কারণ কাজের পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ না করতে পারলে মাথা গরম হওয়াটাই স্বাভাবিক। ছবি ঃ আলিফ হোসেন রিফাত



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top