বগুড়া শুক্রবার | ৫ পৌষ ১৪২১ | ২৫ সফর ১৪৩৬ হিজরি | ১৯ ডিসেম্বর ২০১৪
ব্রেকিং নিউজ
আর্কাইভ
দিন :
মাস :
সাল :
এই সংখ্যার পাঠক
১৪৬৪৩৭
সার্চ
এবার শেখ হাসিনাকে সংযত হতে বললেন খালেদা জিয়া
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এবার জিহ্বা সামলাতে বললেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, হাসিনা ছাত্রলীগ-যুবলীগ-গুন্ডালীগ সামলান। প্রধানমন্ত্রী সর্বোচ্চ পদ। সেই পদে থেকে হাসিনা যে ভাষায় কথা বলেন তা সমীচিন নয়। হাসিনা নিজের জিহ্বা সামলান। নিজে সংযত হোন। তাতে জনগণ কিছুটা শান্তি পাবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স... বিস্তারিত
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গতকাল রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ৯০'র ডাকসু ও ছাত্রঐক্যের কনভেনশনে নেতাকর্মীদের হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান -করতোয়া
নির্বাচিত সংবাদ
এবার শেখ হাসিনাকে সংযত হতে বললেন খালেদা জিয়া
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এবার জিহ্বা সামলাতে বললেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, হাসিনা ছাত্রলীগ-যুবলীগ-গুন্ডালীগ সামলান। প্রধানমন্ত্রী সর্বোচ্চ পদ। সেই পদে থেকে হাসিনা যে ভাষায় কথা বলেন তা সমীচিন নয়। হাসিনা নিজের জিহ্বা সামলান। নিজে সংযত হোন। তাতে জনগণ কিছুটা শান্তি পাবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ৯০\'র ডাকসু ও ছাত্র ঐক্যের কনভেনশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন। জনগণ ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেয়নি মন্তব্য করে তিনি খালেদা জিয়া বলেন, শুধু আমরা নই, পুরো দেশের মানুষ বলছে ৫ জানুয়ারি দেশে কোনো নির্বাচন হয়নি। সরকারকে আবারও অবৈধ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, এ সরকার সংসদে যেসব বিল পাশ করছে সেগুলোরও বৈধতা নেই। এ পার্লামেন্ট অবৈধ। সমপ্রতি সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের প্রসঙ্গে খালেদা জিয়া বলেন, আপনার (শেখ হাসিনা) সঙ্গে তারা চা খেতে পারেন, আর আমি এক সময় প্রধনামন্ত্রী ছিলাম, আমার সঙ্গে দেখা করা যাবে না- এমন কোনো নিয়ম আছে? আপনি সন্ত্রাসীদের সঙ্গে দেখা করবেন, জঙ্গিদের সঙ্গে দেখা করবেন- আর আমাদের সঙ্গে দেখা করলেই অপরাধ।্থখালেদা জিয়া বলেন, ্তুযারা অর্থ পাচার করছে তাদের ধরাছোঁয়ার বাইরে রেখেছেন। তাদের নামে মামলা হয়না। নিজেদের দুর্নীতি ধরবেন না, এটা তো হয়না। আইন সবার জন্য সমান। সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বলেন, হাসিনার নামে ১৫ মামলার সব শেষ হয়ে গেল। আপনারা ক্ষমতায় এসে নিজের মামলাগুলো তুলে নিয়েছেন। আর আমাদের জড়ানো হচ্ছে। আমাদের মামলা কোর্টে তুলতে হলে হাসিনার মামলাগুলোও পুনরায় কোর্টে তুলতে হবে। বিএনপি নেত্রী বলেন, দেশে বিচার বিভাগ বলে কিছু নেই। বিচার বিভাগ ধ্বংস হয়ে গেছে। বিচারকরা চোহারা দেখে বিচার করেন। আওয়ামী লীগ যা করুক সব তাদের মাফ। তাদের নামে বিচার হয়না। তাদের ধরলে ছেড়ে দেয়। এমন বিচার বিভাগ চলতে পারে না। বিচারকদের বলতে চাই- অন্যায় যে করবে তাকে শাস্তি দিন। আপনারা জোর করে সাজা দেবেন তা হবেনা। এতে জনগণের প্রতি অবিচার করা হবে। আপনারা (বিচারকরা) সত্যের পক্ষে জনগণের পক্ষে থাকুন। কে বিএনপি কে জামায়াত কে যুবলীগ-ছাত্রলীগ দেখবেন না। আল্লার কাছে কি জবাব দেবেন? সত্য পথে, ন্যায়ের ও সঠিক পথে থাকেন। খালেদা জিয়া অভিযোগ করে বলেন, আজ আওয়ামী লীগ দেশটাকে খেতে বসেছে। আগে ইউনিভার্সিটিতে লেখাপড়া হতো। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে লেখাপড়া শেষ হয়ে যায়। নকল নকল নকল চলে। এখন শুরু হয়েছে প্রশ্ন ফাঁস। বেশি বেশি পাস করাতে হবে। বিদেশীদের কাছে পার্সেন্টেন্স দেখাতে হবে। সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে তেলবাহী জাহাজ ডুবে তেল ছড়ানোর ঘটনা সরকারের সাজানো বলে মন্তব্য করেন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, পরিকল্পিতভাবে সুন্দরবনে এই ট্যাঙ্কার ডুবানো হয়েছে। কাজটি করা হয়েছে কিসের জন্য? রামপালের বিদ্যুত কেন্দ্রের জন্য। এটিতে তারা ফার্নেস অয়েল নিয়ে গিয়েছিল। যে জাহাজটি ধাক্কা দিয়েছে সেটি নাকি খালি ছিল। এর ধাক্কায় তো তেলবাহী জাহাজ ডোবার কথা না! সুন্দরবন ধ্বংস করা হবে। পশুপাখি ধ্বংস করা হচ্ছে। এইভাবে পরিকল্পিতভাবে দেশটাকে ধ্বংস করা হচ্ছে। সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়া বলেন, ্তুপুলিশকে বলব জনগণ যে আন্দোলন করছে তাতে বাধা সৃষ্টি করবেন না। আপনারা গুলি চালাবেন না। আপনারা জনগণের সেবক। আপনি কাকে গুলি করছেন- বিদেশীদের? অপনাদের তো সন্তান আছে। ভুলে যাবেন না, হাসিনা সারাজীবন আপনাদের আগলে রাখতে পারবেন না। একটি বিশেষ জেলার পুলিশকে দিয়ে এই কাজ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, গুলি চালাবেন না। এবার যদি গুলি চলে তার জবাব দিতে জনগণ প্রস্তুত। পাল্টা গুলি চালাবো না। গুলি যেন না চলে সে কথাটাই বলতে চাই। সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে। যেকোন সময় আন্দোলন হতে পারে। যেকোন সময় আমরা ডাক দেব। জনগণ অতিষ্ট আওয়ামী লীগের আচরণে। খালেদা জিয়া বলেন, গুম-খুন এখনও বন্ধ হয় নাই। এই র‌্যাবকে এখন বাতিল করেন। র‌্যাবকে বাতিল করতে হবে। র‌্যাব পেশাদার খুনি বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। তাদের জেলে নিতে হবে। তাদের যে মেজর জিয়া; তার বিচার করতে হবে। জিয়াকে বলব আপনি চাকরি করেন, কে হুকুম দিয়েছে মানুষকে গুম-খুন করার? সরকারের উদ্দেশ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, গুম-খুন অত্যাচার বন্ধ করেন। যদি জনগণের ওপর বিশ্বাস আস্থা থাকে তবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে দেখেন। খালেদা জিয়া বলেন, সকলকে প্রস্তুত থাকতে হবে। যেকোন সময় ডাক আসবে। এবার ঢাকার রাজপথ আর খালি যাবেনা। রাজপথে সবাইকে নামতে হবে। সাহস থাকলে পুলিশ আর বালুর ট্রাক দিয়ে বাড়ি আটকাবেন না। বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া বলেন, এরা (আওয়ামী লীগ) দেশকে ধ্বংস ও পেছনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। নিজেদের আগে ঠিক করেন তারপর অন্যদের উপদেশ দেবেন। বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও ডাকসুর সাবেক ভিপি আমানউল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে ছাত্র কনভেনশনে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, সাবেক ছাত্রনেতা শামসুজ্জামান দুদু, ড. আসাদুজ্জামান রিপন, হাবিবুর রহমান হাবিব, ফজলুল হক মিলন, নাজিম উদ্দিন আলম, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, খন্দকার লুৎফর রহমান, আসাদুজ্জামান আসাদ, কামরুজ্জামান রতন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, হাবিব উন নবী খান সোহেল, এবিএম মোশাররফ হোসেন, শিরিন সুলতানা, হেলেন জেরিন খান, শফিউল বারী বাবু, আজিজুল বারী হেলাল, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুসহ সারাদেশের ৯০ দশকের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্বাচিত ভিপি-জিএস ও সাবেক ছাত্র নেতারা।
জব্দ অর্থ উদ্ধার করা গেলে পদ্মা সেতুতে ব্যয় করব
দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) যে অর্থ পাচারের অভিযোগ তদন্ত করছে, তার পুরোটাই বিদেশে উপার্জনের দাবি করেছেন আলোচিত ব্যবসায়ী মুসা বিন শমসের। গতকাল বৃহস্পতিবার দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমার বিষয়ে যা বলা হয়- আমি সাত বিলিয়ন ডলার বা ৫১ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছি। কেউ কোনো দিন এত টাকা এদেশে আয় করতে পারেনি, পারবেও না। আমি এই টাকা বিদেশে উপার্জন করেছি। গতকাল সকাল ১১টায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হলেও দুই ঘণ্টা আগেই নারীসহ ৪০জন দেহরক্ষী নিয়ে দুদকে হাজির হন মুসা বিন সমশের। জাঁকজমকপূর্ণ চালচলনের কারণে বিদেশি সংবাদ মাধ্যমে যাকে \'বাংলাদেশের প্রিন্স\' বলা হয়। অবৈধ সম্পদের খোঁজে দুদক কার্যালয়ে মুসাকে প্রায় তিন ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেন জ্যেষ্ঠ উপ-পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী। তিনিই বিষয়টি অনুসন্ধানের দায়িত্বে রয়েছেন। আলোচিত এই ব্যবসায়ীকে তলব করে গত ৪ ডিসেম্বর গুলশানের বাসা ও বনানীর ব্যবসায়িক কার্যালয়ে চিঠি পাঠিয়েছিল দুদক। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বেলা দেড়টার দিকে বেরিয়ে মুসা সাংবাদিকদের বলেন, দুদক আমাকে ডেকেছে, আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং আইনের সুশাসন প্রতিষ্ঠায় আন্তরিক বিধায় আমি এসেছি। অভিযোগের তদন্ত প্রসঙ্গে এক প্রশ্নে তিনি বলেন, সব গল্পেরই একটি ইতিহাস থাকে, ইতিহাস পর্যালোচনা করলে সত্য বেরিয়ে আসে। বাণিজ্য সাময়িকী বিজনেস এশিয়ার সাম্প্রতিক একটি প্রতিবেদনকে ভিত্তি করে গত ৩ নভেম্বর কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে মুসা বিন শমসেরের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত হয়। সুইস ব্যাংকে এই ব্যবসায়ীর সাত বিলিয়ন ডলার রয়েছে বলে ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। অর্থ পাচারের বিষয়টি অস্বীকার করলেও সুইস ব্যাংকে টাকা থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেননি আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের বেয়াই মুসা বিন শমসের। তিনি বলেন, সুইস ব্যাংকে আটকে থাকা ওই টাকা উদ্ধার করা গেলে পদ্মা সেতু, দুঃস্থ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষকসহ সামাজিক গঠনমূলক কর্মকান্ডে অবদান রাখব। সুখি-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলার চেষ্টা করব।
সোনাতলায় অযত্ন অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে বিজ্ঞান একাডেমি
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা পরিষদ চত্বরে মাত্র দশ বছর আগে নির্মিত বিজ্ঞান একাডেমি রক্ষণাবেক্ষণ ও অযত্ন অবহেলায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। নির্ধারিত কোন ব্যক্তি দায়িত্বে না থাকায় বিজ্ঞান শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করার সেই একাডেমিটি আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। ২০০৪ সালে তৎকালীন বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আশরাফ হোসেন উপজেলার ৩২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১টি সরকারি কলেজ, ৩টি বেসরকারি কলেজ ও ৬টি কারিগরি কলেজসহ ৯টি মাদ্রাসার প্রায় ৩ হাজার বিজ্ঞান শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করার জন্য উপজেলা লাইব্রেরিতে বিভিন্ন বই পুস্তক, বিজ্ঞান সরঞ্জামাদি, বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি, চার্ট, ম্যাপ ক্রয়ের পাশাপাশি উপজেলা চত্বরেই প্রায় ২ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি বিজ্ঞান একাডেমি স্থাপন করা হয়। টিনের চালা ও সীমানা প্রাচীর বেষ্টিত প্রায় এক শতক জায়গার উপর নির্মাণ করা হয় ইট ও পাথর দিয়ে একটি বাংলাদেশের মানচিত্র, সৌর জগৎ এবং বিশ্বের মানচিত্র। স্থানীয় প্রাইমারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট এর চারু ও কারুকলা বিষয়ের ইন্সট্রাক্টরসহ কয়েকজন চিত্রশিল্পী বিভিন্ন রং ব্যবহার করে ওই বিজ্ঞান একাডেমিটি আকর্ষণীয় করে তোলেন। এতে করে শুধু শিক্ষার্থীরা না পথচারীদের দৃষ্টি কাড়ে ওই বিজ্ঞান একাডেমির দিকে। একটু সময় হলেও শিক্ষার্থী ও পথচারীরা ওই বিজ্ঞান একাডেমিতে নির্মাণ করা ওই বিষয়ের কারুকাজ এবং মানচিত্র দেখে পৃথিবীর অবস্থান জানতে সক্ষম হতো। আজ অযত্ন অবহেলায় শুধু একাডেমিতে নির্মাণ করা জিনিসপত্রগুলোই নষ্ট হচ্ছে না, লাইব্রেরিতে রাখা বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি ও বইপুস্তক নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে ওই একাডেমির দায়িত্বে থাকা তেকানীচুকাইনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ নুরুজ্জামান জানান, তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মহৎ উদ্যোগে নির্মাণ করা বিজ্ঞান শিক্ষার্থীদের জন্য বিজ্ঞান একাডেমিতে শিক্ষার্থীদের শিক্ষণীয় জিনিসপত্র আনা ও নির্মাণ করা হয়েছিল। আজ অযত্ন অবহেলায় সেগুলো নষ্ট হওয়ার উপক্রম। এছাড়াও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে বিজ্ঞান সামগ্রী সংগ্রহ করা হয়েছিল। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, এটি একটি নিঃসন্দেহ ভালো বিষয়। কেন এমনটি হচ্ছে তা খতিয়ে দেখা হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির জানায়, উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের দেয়া অর্থে বিজ্ঞান একাডেমিটি নির্মাণ করা হয়েছিল। এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আহসান হাবীব জানান, বিজ্ঞান একাডেমিতে নির্মাণ করা বিষয় ছিল বিজ্ঞান শিক্ষার্থীদের জন্য বাস্তবমুখী একটি উপকরণ।
বেড়ায় খাঁচায় মাছ চাষ করে বেকার যুবকরা স্বাবলম্বী
পাবনার বেড়ায় উন্মুক্ত হুরাসাগর ইছামতি নদীতে খাঁচায় মাছ চাষ করে কয়েকজন পরিশ্রমী বেকার যুবক আজ বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্ত হয়ে স্বাবলম্বী হয়েছে। তারা খাঁচার মধ্যে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে মাছ চাষ করে এলাকায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। জানা যায়, বেড়া পৌর এলাকার বনগ্রাম মহল্লার মৃত জুড়ান সরকারের ছেলে শাহদত হোসেন প্রথমে ৫০টি খাঁচা বানিয়ে হুরাসাগর নদীতে মোনোসেক্স তেলাপিয়া নামের মাছ চাষ শুরু করেন। নিজের প্রচেষ্টায় তিনি এলাকায় একজন সফল খাঁচায় মৎস্যচাষী উদোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। তার দেখাদেখি বেড়া পৌর এলাকার বৃশালিকা মহল্লার ফিরোজ, শামীম, লাল মিয়াসহ অনেকেই খাঁচায় মাছ চাষের আগ্রহী হয়ে ওঠেন। শাহদত জানান, অভাব ছিল তার নিত্যদিনের সঙ্গী। কৃষক পরিবারে জন্ম নিয়ে বিএ পাস করে বেকার অবস্থায় দিন কাটে তার। চাঁদপুর ডাকাতিয়া নদীতে উভয় তীরে গড়ে উঠেছে হাজার হাজার তেলাপিয়ার খাঁচা। টেলিভিশনে এটা দেখে ভাবতে থাকেন। তিনি এ ব্যাপারে মৎস্য কর্মকর্তা ও যুব উন্্নয়ন কর্মকর্তার সাথে কথা বলেন। তাদের পরামর্শে অনেক ভেবে চিন্তে একদিন সিদ্ধান্ত নেন খাঁচায় মাছ চাষের। এ বিষয়ে তার কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিল না। তবুও সামান্য কিছু পুঁুজি নিয়ে অত্যান্ত সাহসের সাথে কয়েকজন বন্ধু মিলে নেমে পড়েন খাঁচায় মাছ চাষ করার জন্য। বেড়ার হুরাসাগর নদীতে প্রথমে ৫০টি খাঁচা তৈরি করে তার বন্ধু তুহিনকে সাথে নিয়ে মৎস্য ব্যবসা শুরু করেন। মাছ বিক্রি করে প্রথমবারে তেমন লাভ হয় না। কারণ খাঁচা তৈরি করতে ব্যাপক খরচ হয়। তাই বিভিন্নভাবে পুঁজি সংগ্রহ করে নতুন উদ্যোগে বেশি করে খাঁচা তৈরি করে মাছ চাষ করেন। এতে বেশি লাভ হয়। এর পর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। যেভাবে লাভ বৃদ্ধি পেতে থাকে সেভাবে খাঁচার সংখ্যাও বৃদ্ধি পেতে থাকে। স্বপ্নের মতোই এগোতে থাকে তাদের ব্যাবসা। তার সাফল্যে উৎসাহিত হয়ে এলাকার অনেক বেকার যুবক তার অনুকরণে এই পদ্ধতিতে মাছ চাষ করতে এগিয়ে আসেন। শাহদত হোসেন বলেন, মৎস্য খাদ্য এবং যাবতীয় ওষুধ পত্রের দাম বর্তমান বাজারে অনেক বেশি বেড়ে গেছে। এছাড়া কক্সবাজার থেকে পোনা সংগ্রহ করতে ব্যয় অনেক বেশি এবং কষ্টকর। তিনি জানান, চীন দেশে এই পদ্ধতিতে মাছ চাষে ব্যাপক প্রচলন রয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বৃশালিখা কোলঘাট সংলগ্ন হুরাসাগর নদী ও পাম্পস্টেশন সংলগ্ন ইছামতি নদীতে শত শত খাঁচা বসানো রয়েছে। (৪ পৃঃ ১ কঃ দ্রঃ) বেড়ায় খাঁচায় মাছ চাষ করে (৩ এর পাতার পর) কাঠ, বাঁশ দিয়ে বেষ্টিত চার-পাঁচ ফুট উচ্চতা প্রায় পাঁচ থেকে ছয় ফুট চওড়া নেট বেষ্টিত ঘর তৈরি করে মাছ চাষ করা হচ্ছে। একটি খাঁচায় ২৫০ থেকে ৩০০ পোনা মাছ চাষ করা যায়। খাঁচায় পোনা ছাড়ার দিন থেকে ৪০দিন এর মধ্যে মাছ বাজারে বিক্রি করার উপযুক্ত হয়। একটি খাঁচায় ৪০/৫০ কেজি মাছ চাষ করা হয়। খাঁচায় মাছ চাষ করা ফিরোজ জানান, প্রথমে খাঁচা তৈরির খরচ বাদে মাছ বিক্রি করে তেমন লাভ না হলেও একবার খাঁচা তৈরি করলে অনেক দিন করা যায়। সারা বছর এ পদ্ধতিতে নদীতে মাছ চাষ করা যায়। একটি খাঁচা তৈরি করতে ৬শ থেকে ৭শ টাকা, মাছের খাদ্য ৬৫০ টাকা, ওষুধ ৩০০ টাকা, মাছের পোনা খরচ ১২শ\' টাকা থেকে ১৫শ\' টাকা ও অনান্যা খরচ বাবদ ৫০০ টাকা। মাছ বিক্রি হবে প্রায় ৫ হাজার টাকার। মোট খরচ বাদে ৪০ দিনে একটি খাঁচায় আয় হবে ১ হাজার থেকে ১২শ\' টাকা। তিনি জানান, ১০০টি খাঁচায় মাছ চাষ করতে খরচ হবে প্রায় দেড় লাখ টাকা। আর ১০০টি খাঁচায় মাছ চাষ করে সব খরচ বাদ দিয়ে প্রতি বছর গড়ে প্রায় ১০ লাখ টাকা লাভ করা সম্ভব। তবে কেউ ইচ্ছে করলে কম পুঁজি নিয়ে কম খাঁচা দিয়েও ব্যবসা শুরু করতে পারেন। বেড়া উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান জানান, খাঁচায় মাছ চাষ মৎস্য বিজ্ঞানীদের এক উদ্ভাবন। খাঁচায় মাছ চাষ করে দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করা সম্ভব। নদীতে খাঁচা পেতে মাছ করাতে নদীর প্রবাহমান পানিও পাওয়া যায়। বেড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ কামরুল হোসেন সরকার বলেন, খাঁচায় মাছ চাষ করা খুবই লাভজনক ব্যবসা। এছাড়া মোনাসেক্স তেলাপিয়া মাছ খু্বই সুস্বাদু মাছ। তিনি বলেন, খাঁচায় মাছ চাষের ব্যাপারে আমি সবাইকে উৎসাহিত করছি যাতে বেকার যুবকরা সবাই খাঁচায় মাছ চাষ করে নিজেদের এবং দেশের অর্থনীতিকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিতে পারে। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যে উপজেলাতে ১০ জনকে প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের পরীক্ষামূলকভাবে ৫০টি খাঁচা তৈরি করে কৈটোলাতে স্থাপন করে দিয়েছি।
বগুড়া আইডিয়েল লায়ন্স ক্লাবের শীতবস্ত্র বিতরণ
বগুড়া আইডিয়েল লায়ন্স ক্লাবের উদ্যোগে গতকাল বৃহস্পতিবার শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়। কাটনারপাড়াস্থ রওশন-পিলু প্লাজায় ক্লাবের নিজস্ব অফিসে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে বিএসআরএম\'র সহযোগিতায় ১৫০ জন দুস্থ শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক করতোয়া সম্পাদক লায়ন মোজাম্মেল হক এমজেএফ, পিডিজি। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএসআরএম\'র ডেপুটি ম্যানেজার লায়ন মোস্তাফিজুর রহমান। লায়ন্স ক্লাব বগুড়া আইডিয়ালের সভাপতি লায়ন মাহমুদ হোসেন পিন্টুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন লায়ন্স ক্লাবের ডাইরেক্টর লায়ন এনামুল হক দুলাল, লায়ন আকতারুজ্জামান ডিউক, লায়ন তৌফিক হাসান ময়না, লায়ন সাইরুল ইসলাম, লায়ন আতিকুর রহমান মিঠু, লায়ন মির্জা দুলাল, লায়ন হেলেনা খানম ইরানী, লায়ন মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, লায়ন সৈয়দ কবির আহমেদ মিঠু, লায়ন কাজল, লায়ন তাজিন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন লায়ন আলাউদ্দিন ও লিও মাহাবুব হোসেন অন্তু। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি লায়ন মোজাম্মেল হক বলেন, মানবতার সেবায় পৃথিবীব্যাপি কাজ করছেন লায়ন সদস্যরা। বগুড়া লায়ন্স ক্লাব আইডিয়াল শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র দান করে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বিশেষ অতিথি\'র বক্তব্যে লায়ন মোস্তাফিজুর রহমান বরেন, সেবামূলক কাজে আমাদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। খবর বিজ্ঞপ্তির।
 
 
 
মৃত্যুদন্ডাদেশের বিরুদ্ধে খালাস চেয়ে মোবারকের আপিল
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :
মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদন্ডাদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রাজাকার কমান্ডার ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেতা মোবারক হোসেন। গতকাল বৃহস্পতিবার তার পক্ষে আইনজীবী জয়নাল আবেদীন তুহিন সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই আপিল দাখিল করেন। আবেদনে তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর দেওয়া... বিস্তারিত
 
'বিজয়ের মাসে আরেক বিজয়'
বাংলাদেশের রিজার্ভ এখন পাকিস্তানের প্রায় দ্বিগুণ
করতোয়া ডেস্ক :
বঞ্চনার শিকার হয়ে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে পাকিস্তান থেকে স্বাধীন হওয়া বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার ধারায় বিজয়ের ৪৩ বছরে বৈদেশিক মুদ্রার সঞ্চয়ন প্রায় দ্বিগুণ করেছে ওই দেশটি থেকে। গতকাল বৃহস্পতিবার দিন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২২ দশমিক ৪০ বিলিয়ন (২ হাজার ২৩৮ কোটি) ডলার, যা... বিস্তারিত
 
খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলায় বিচারক পরিবর্তন
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুটি দুর্নীতি মামলায় অভিযোগ গঠনকারী বিচারককে পরিবর্তন করা হয়েছে। 'জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট' ও 'জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট' দুর্নীতি মামলা বিচারের দায়িত্বে থাকা ঢাকার বিশেষ জজ-৩ বাসুদেব রায়কে পটুয়াখালীতে বদলি করে বিচারের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আইন মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (মতামত) আবু আহমেদ জমাদারকে।... বিস্তারিত
 
জেএসসি-জেডিসির ফল ২৮ ডিসেম্বর
করতোয়া ডেস্ক :
অষ্টম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষা জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফল আগামী ২৮ ডিসেম্বর প্রকাশিত হবে। আন্তঃশিক্ষা সমন্বয় বোর্ড সাব-কমিটির সভাপতি এবং ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক দিলারা হাফিজ গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বলেন, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার... বিস্তারিত
 
 
ভিডিও
রাশিচক্র আজ ঢাকায় আজ বগুড়ায়
 
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের চরমপন্থিরা আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া দেবে বলে মনে করেন কি?
হ্যাঁ
উত্তর নেই
না
 
 
 
আজকের ভিউ
নামাজের সময়সূচী
ওয়াক্ত
সময়
ফজর
03:50
জোহর
12:7
আছর
04:42
মাগরিব
06:54
এশা
08:20
 
 

সম্পাদকঃ মোজাম্মেল হক, সম্পাদক কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, শিল্পনগরী বিসিক বগুড়া এবং ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড, (আরামবাগ) ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও চকযাদু রোড, বগুড়া হতে প্রকাশিত।
ফোন ৬৩৬৬০,৬৫০৮০, সার্কুলেশন বিভাগঃ ০১৭১৩২২৮৪৬৬, বিজ্ঞাপন বিভাগঃ ৬৩৩৯০, ফ্যাক্সঃ ৬০৪২২। ঢাকা অফিসঃ স্বজন টাওয়ার, ৪ সেগুন বাগিচা। ফোনঃ ৭১৬১৪০৬, ৯৫৬০৬৬৯, ৯৫৬৮৮৪৬, ফ্যাক্সঃ ৯৫৬৮৫২২ E-mail : dkaratoa@yahoo.com . . . .

Powered By: